ষষ্ঠ শ্রেণির ১ম সপ্তাহের বাংলা অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর

ষষ্ঠ শ্রেণির ১ম সপ্তাহের বাংলা অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর

ষষ্ঠ শ্রেণির ১ম সপ্তাহের বাংলা অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর, দীর্ঘদিন কওনা ভাইরাসের কারণে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ ছিল এতে করে অসংখ্য শিক্ষার্থীদের লেখাপড়ার বড় ধরনের সমস্যা হয়েছে এই বিষয়টি বিবেচনা করে সরকারকর্তৃক শিক্ষা মন্ত্রণালয় থেকে বর্তমানে কিছু শ্রেণিকক্ষের শিক্ষার্থীদের অ্যাসাইনমেন্ট পাঠানো হচ্ছে। দীর্ঘদিন লেখাপড়া না করে এই অ্যাসাইনমেন্ট গুলোর উত্তর বের করতে অনেকেরই কষ্টসাধ্য হয়ে যাচ্ছে তাই তোমাদের বিষয়টি চিন্তা করে আমরা তোমাদের জন্য এসাইনমেন্ট তৈরি করে ফেলেছি।

►► আরো দেখো: কিভাবে এইচএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট বের করব?
►► আরো দেখো:ম-১০ম শ্রেণি: কৃষিশিক্ষা ২য় অধ্যায়ের MCQ উত্তরসহ

ষষ্ঠ শ্রেণির ১ম সপ্তাহের বাংলা অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর

শিক্ষার্থীদের গত বছরের পরীক্ষার মতো সাধারণ ব্যবহারিক বই প্রস্তুত করতে হবে না। সংক্ষিপ্ত পাঠ্যক্রমের আলোকে যেসব বিষয়ে ব্যবহারিক পরীক্ষা উল্লেখ করা হয়েছে। এই সমস্ত কাজগুলি ব্যবহারিকভাবে করতে হবে। সংক্ষিপ্ত পাঠ্যক্রমে প্রতিটি বিষয়ের শেষে ব্যবহারিক বিষয়বস্তু উল্লেখ করা হয়েছে। কোভিড -১৯ এর কারণে, দেশের সমস্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ২০২০ সালের মার্চ থেকে বন্ধ রয়েছে। অতএব, সকল শিক্ষার্থীদের কথা বিবেচনা করে, আপনার নিয়োগের ব্যবস্থা করা হয়েছে ১ মার্চ, ২০২২ থেকে। যাতে শিক্ষার্থীরা পড়ার সঙ্গে যুক্ত হতে পারে।

ষষ্ঠ শ্রেণির ১ম সপ্তাহের বাংলা অ্যাসাইনমেন্ট উত্তর

প্রশ্নঃ প্রতিবন্ধিতার ধারণা দিতে হবে।

ক) উত্তরঃ প্রতিবন্ধিতার ধারণাঃ

বাংলাদেশ প্রতিবন্ধী কল্যাণ আইন, ২০০১-এ বলা হয়েছে যে, ” প্রতিবন্ধী অর্থ এমন এক ব্যক্তি যিনি জন্মগতভাবে বা রাগোক্রান্ত হয়ে বা দুর্ঘটনায় আহত হয়ে বা অপচিকিৎসায় বা অন্য কোনাে কারণে দৈহিকভাবে বিকলাঙ্গ বা মানসিকভাবে ভারসাম্যহীন এবং উক্তরুপ বৈকল্য বা ভারসাম্যহীনতার ফলে স্থায়ীভাবে আংশিক বা সম্পূর্ণ কর্মক্ষমতাহীন এবং স্বাভাবিক জীবনযাপনে অক্ষম”।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (WHO) প্রকাশিত “International classification of impairment, Disability and Handicap (ICIDH)” শীর্ষক প্রকাশনায় বিকলাঙ্গ ও প্রতিবন্ধী সমস্যাকে ৩ শ্রেণীতে বিভক্ত করা হয়েছে, যথা-

  • ১. দূর্বলতা (Impairment)
  • ২. অক্ষমতা (Disability)
  • ৩. প্রতিবন্ধী (Handicap)
আরো পড়ুন:  Environment pollution Paragraph - পরিবেশ দূষণ প্যারাগ্রাফ

►► See also: Bangladesh Police will take 4000 constables
►► See also: Recruitment Circular 2022 in Pran Group

প্রশ্নঃ তুমি কী কী পারো আর কী কী পারো না, তার তালিকা করতে হবে।

খ) উত্তরঃ আমি যাযা পারি আর যাযা পারি না তার তালিকা:

►► আমি যাযা পারি:

  • ১. আমি হাঁটতে পারি।
  • ২. গান গাইতে পারি।
  • ৩. নাচতে পারি।
  • ৪. বই পড়তে পারি।
  • ৫. গল্প লিখতে পারি।
  • ৬.সাইকেল চালাতে পারি।
  • ৭. খেলাধুলা করতে পারি।
  • ৮. ছবি আঁকতে পারি।

►► আমি যা যা পারি না।

  • ১. ঘুড়ি উড়াতে পারি না।
  • ২. সাইকেল চালাতে পারি না।
  • ৩. সাতার কাটতে পারি না।
  • ৪. গিটার বাজাতে পারি না।
  • ৫. ইংরেজিতে কথা বলতে পারি না।
  • ৬. একা কোথাও বেড়াতে যেতে পারি না।
  • ৭. রান্না করতে পারি না।

প্রশ্নঃ বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুর অসুবিধাগুলো চিহ্নিত করতে হবে।

গ) উত্তরঃ বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুর অসুবিধাসমূহঃ

আমাদের আশেপাশে এরকম অনেক শিশু দেখা যায় যারা স্বাভাবিক শিশুদের মত হয়না। তাদের আচার-আচরণ ও দৈহিক গঠন স্বাভাবিকের তুলনায় ধীর এবং অসামঞ্জস্যপূর্ণ হয়। এদের মধ্যে অনেকেই আছে যারা ভালােভাবে চোখে দেখতে পায় না, কারো কারো হাঁটাচলা করতে অসুবিধা, কিছু শিশু আছে যারা ঠিকমত। কথা বলতে পারেনা। আবার অনেকেই আছে যারা অন্যের কথা শুনতে পায়না।

আবার কেউ কেউ আছে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী, যারা অনেক বড় হয়েও গ ছোটদের মতো আচরণ করে। সাম্প্রতিক বছরগুলােতে অটিজম স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডারে (এএসডি)ব্যাধি উল্লেখযাগ্য হারে বৃদ্ধি পেয়েছে। এটি একপ্রকার ব্রেইন ডেভেলপমেন্ট ডিসঅর্ডার যা বৈচিত্র্যপূর্ণ। নিম্নে এসব বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের অসুবিধাসমূহ চিহ্নিত করা হলোঃ

১. মৌখিক যোগাযোগে সমস্যাঃ অটিজমের সম্ভাব্য মৌখিক উপসর্গ হচ্ছে: ১২ মাসের মধ্যে কোনাে অস্ফুটবাক্য বা আধ-আধ বুলি না বলা অথবা কোনো কিছু নির্দেশ করার মতাে অঙ্গভঙ্গি না করা, ১৬ মাসের মধ্যে কোনো শব্দ না বলা অথবা ২৪ মাসের মধ্যে কোনাে অর্থবােধক দুই শব্দের শব্দগুচ্ছ না বলা।

আরো পড়ুন:  ৯ম-১০ম শ্রেণি: হিসাববিজ্ঞান ১ম অধ্যায়ের MCQ উত্তরসহ

২. সামাজিক পারস্পরিকতায় সমস্যাঃ অটিজম স্পিকসের মেডিক্যাল রিসার্চের প্রধান এবং মেডিক্যাল ডাক্তার পল ওয়াং বলেন, ‘সুস্থ বাচ্চারা হাসি, আলিঙ্গন অথবা সজ্ঞান দৃষ্টিপাত শেয়ার করে অন্যদের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক প্রকাশ করে। জন্মের ছয় মাসের মধ্যে প্রতিবন্ধী বাচ্চার মুখে বড় হাসি অথবা অন্যান্য আনন্দদায়ক অনুভূতি প্রকাশ পায় না।

শিশুকে কোনো বলের ছবি দেখালে অথবা কোনো বল দেওয়া হলে,

সে আই কনটাক্ট না করে বলের ছবি বা বলের প্রতি অধিক আগ্রহ দেখাবে।

সে একাকী খেলতে চাইবে, কারণ তার পক্ষে অন্যদের সঙ্গে মেশা কঠিন।

৩. সামাজিক দক্ষতা হ্রাসঃ

গবেষণা অনুসারে, অটিজম স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত ছেলেমেয়েদের কমন একটি উপসর্গ হচ্ছে, কথাবার্তা কম বলা সামাজিক দক্ষতা হ্রাস। ডা, ওয়াং বলেন, ‘অসুস্থ বা মর্মাহত কোনো শিশু কয়েকদিন ধরে যোগাযোগে বা কথাবার্তা কমিয়ে দিতে পারে, কিন্তু তা কয়েকদিনের বেশি হলে অটিজম বিশেষজ্ঞকে দেখানো গুরুত্বপূর্ণ। অটিজম গবেষক জেনিফার রিকলার স্লেটডটকমে লিখেন, ‘অটিজমে আক্রান্ত এক-তৃতীয়াংশ শিশু কয়েক রকম অদক্ষতার সম্মুখীন হয়, এ ধরনের বেশিরভাগ শিশুর শুরু থেকেই সাধারণ অগ্রগতি হয় না। তিনি যোগ করেন, তাদের অগ্রগতি বিলম্ব হয় এবং তারা তাদের অর্জিত কিছু দক্ষতা হারায়।

►► বলা- এসব পুনরাবৃত্তিমূলক আচরণ হচ্ছে, অটিজম স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডারের সাধারণ বৈশিষ্ট্য।

৫. তীব্র আসক্তিঃ অটিজম স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত শিশুরা উদ্দেশ্যহীনভাবে কোনো অর্ডারে বা কোনো কিছুতে তীব্র আসক্ত হতে পারে। তারা খেলার সময় খেলনা নিয়ে খেলার পরিবর্তে খেলনা সাজানােতে ঘন্টার পর ঘন্টা ব্যয় করতে পারে এবং রঙ বা আকারের ভিত্তিতে খেলনার শ্রেণীবিভাজন করতে পারে।

৬. কোনো কিছুতে অতিরিক্ত কৌতুহলঃ অটিজম স্পিকস অনুসারে, আক্রান্ত শিশুর কোনো অস্বাভাবিক বিষয়ে তীব্র কৌতুহল থাকতে পারে। অটিজম স্পেকট্রাম। ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত শিশুদের ফ্যান, ভ্যাকুয়াম ক্লিনার অথবা টয়লেটের প্রতি অবসেশন থাকতে পারে।

আরো পড়ুন:  ৯ম-১০ম শ্রেণি: হিসাববিজ্ঞান ২য় অধ্যায়ের MCQ উত্তরসহ

৭. কোনো কথাকে আক্ষরিক অর্থেবুঝঃ অটিজম স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডারে ভালো লোকেরা কোনো বিষয় বা শব্দগুচ্ছকে আক্ষরিক অর্থে বুঝতে পারে, যেমন- ‘আমাকে একটা। পেপার ক্লিপ ছুঁড়ে মার’ বললে তারা আপনার মাথা বরাবর পেপার ক্লিপ ছুঁড়ে মারতে পারে, অথবা এখন বসো’ বললে তারা কোথায়। বসবে তা জিজ্ঞেস করতে পারে।

৮. সম্পর্কযুক্ত অন্যান্য সমস্যাঃ অটিজম স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডারে আক্রান্ত লোকদের এ ব্যাধির সঙ্গে সম্পর্কযুক্ত অন্যান্য সমস্যা থাকতে পারে। অটিজম স্পিকস। অনুসারে, অটিজম স্পেকট্রাম ডিসঅর্ডারের সঙ্গে পাকস্থলী ও অন্ত্রের রাগে, মৃগীরাগে, ঘুমের ব্যাঘাত, শারীরিক অনুভূতির সমস্যা। এবং খাবার নয় এমন জিনিস খাওয়ার প্রবণতা জড়িত থাকতে পারে।

 

►► আরো দেখো: কিভাবে এইচএসসি পরীক্ষার রেজাল্ট বের করব?
►► আরো দেখো:ম-১০ম শ্রেণি: কৃষিশিক্ষা ২য় অধ্যায়ের MCQ উত্তরসহ

প্রশ্নঃ প্রতিবন্ধী মানুষের জন্য কী করা যায় তার উল্লেখ করতে হবে।

ঘ) উত্তরঃ প্রতিবন্ধী শিশুদের জন্য আমরা যা করতে পারিঃ

১. বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের সাথে বন্ধুসুলভ আচরণ করতে পারি।

 ২. বিভিন্ন বৃত্তিমূলক প্রশিক্ষণ এর মাধ্যমে বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের দক্ষ নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে পারে।

৩. সব সময় উৎসাহ এবং সঙ্গ দিয়ে তাদের আত্মবিশ্বাস গড়ে তুলতে। পারি।

৪. বিভিন্ন সামাজিক অনুষ্ঠানে তাদেরকে সঙ্গ দিতে পারি।

৫. প্রতিবন্ধকতার ধরন অনুযায়ী প্রতিবন্ধী শিশুদের বিভিন্ন খেলায়। অংশগ্রহণ করতে পারি। যেমন- গান বলা, গল্প শোনানো সহ অন্যান্য খেলা যেগুলাতে তারা অংশগ্রহণ করতে পারে।

৬. বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের প্রতি ইতিবাচক মনোভাব নিয়ে নানাভাবে তাদের সাহায্যে এগিয়ে আসতে পারি।

৭. বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের সাথে পরিবারের সুসম্পর্ক গড়ে তোলার চেষ্টা করতে পারি।

এভাবে আমরা বিশেষ চাহিদাসম্পন্ন শিশুদের সঙ্গে এবং তাদের জন্য বিশেষ পরিকল্পনা গ্রহণ করে তাদেরকে সমাজের জনসম্পদে পরিণত করতে পারি।’

Check Also

৮ম থেকে এইচএসসি সকল শ্রেণির সাজেশান্স

৯ম-১০ম শ্রেণি: কৃষিশিক্ষা ২য় অধ্যায়ের MCQ উত্তরসহ

৯ম-১০ম শ্রেণি: কৃষিশিক্ষা ২য় অধ্যায়ের MCQ উত্তরসহ উদ্ভিদের বংশ বিস্তারের প্রধান মাধ্যম কি? (ক) বীজ✔ …

Leave a Reply

Your email address will not be published.