eSIM কি, eSIM ব্যবহারের সুবিধা কি, কিভাবে কাজ করে?

eSIM বা Embedded SIM এর প্রযুক্তি বহু আগে থেকেই অন্যান্য দেশে প্রচলিত আছে। কিন্তু আমাদের দেশে এই প্রথম গ্রামীনফোন eSIM নিয়ে আসতে যাচ্ছে।

পৃথিবীর প্রায় সকল টেকনোলজি প্রতিনিয়ত ডেভলপ (আপগ্রেড) হচ্ছে এবং সাইজে খুবই ছোট হয়ে যায়। সেই সাথে মানুষের জন্য অনেক বেশি হেল্পফুল হয়। একই ব্যাপার ঘটেছে সিম কার্ডের বেলায়ও। প্রথমে যখন সিম কার্ড বের হয় তখন অনেক বড় একটা সিম-কার্ড ছিল যেটা বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষ হয়তো দেখেননি। এরপরে সব চাইতে জনপ্রিয় সিম ছিল (Mini SIM) মিনি সিম, এরপরে আসলো (Micro SIM) মাইক্রো সিম, এরপরে আসলো (Nano SIM) ন্যানো সিম এবং এখন আবার খুবই ছোট একটা সিম বের হয়েছে, যার নাম দেয়া হয়েছে “eSIM ই-সিম Embedded SIM এম্বেডেড সিম।”

[ads1]

এই eSIM ই-সিম সম্পর্কে অনেকেই হয়তো জেনে থাকবেন যে, বিভিন্ন দেশে ইতিমধ্যে এটি চালু হয়েছে। যদিও আমাদের বাংলাদেশেএটি এখনও চালু হয়নি। খুশির সংবাদ হচ্ছে- রিসেন্টলি গ্রামীণফোন অ্যানাউন্সমেন্ট করেছে যে, তারা বাংলাদেশ eSIM ই-সিম খুব শিগগিরই লঞ্চ করতে যাচ্ছে। অবশ্যই এটা স্মার্টফোন ইউজারদের জন্য একটা গ্রেট নিউজ। 

রিসেন্টলি যে ফোনগুলো কেনা হয়েছে অথবা যে ফোনগুলো ভালো ব্র্যান্ড থেকে কেনা হয়েছে সেগুলোতে কিন্তু eSIM ই-সিম ব্যবহারের সুবিধা রয়েছে। আমার কাছে একটি eSIM সাপোর্টেড ফোন আছে। তবে বাংলাদেশে অথবা আমার নিকট eSIM ই-সিম না থাকায় এটি ব্যবহার করা সম্ভব হচ্ছে না, যার জন্য আমাকে কেবলমাত্র একটি সিঙ্গেল সিম ব্যবহার করতে হচ্ছে। গ্রামীন ফোন কোম্পানি eSIM ই-সিম লঞ্চ করবে এখন আমিও আমার ডিভাইসে eSIM ই-সিম ব্যবহারের সুবিধা পাচ্ছি! যা খুবই গ্রেটফুল নিউজ। 

eSIM ই-সিম সাপোর্টেড ফোন লিস্ট

List of eSIM Supported Handsets

Apple

1. iPhone 13, 13 Pro, 13 Pro Max, 13 Mini

2. iPhone 12, 12 Pro, 12 Pro Max, 12 Mini

3. iPhone SE

4. iPhone 11, 11 Pro, 11 Pro Max

5. iPhone XS, XS Max

6. iPhone XR

[ads1]

7. iPad Pro 12.9‑inch (4th generation)

8. iPad Pro 12.9‑inch (3rd generation)

9. iPad Pro 11‑inch (2nd generation)

10. iPad Pro 11‑inch (1st generation)

11. iPad Air (4th generation)

12. iPad Air (3rd generation)

13. iPad (8th generation)

14. iPad (7th generation)

15. iPad mini (5th generation)

Samsung

[ads1]

1. Samsung Galaxy S22 5G, Ultra 5G, S22+ *(official version will support eSIM by April 01, 2022)

2. Samsung Fold LTE model

3. Samsung Galaxy Z Fold3 5G

4. Samsung Galaxy Z Flip 5G

5. Samsung Galaxy Z Flip

6. Samsung Galaxy Z Fold2 5G

7. Samsung Galaxy Fold

8. Samsung Galaxy S21+ 5G *(coming soon)

9. Samsung Galaxy S21 Ultra 5G *(coming soon)

10. Samsung Galaxy Note 20 FE 5G *(coming soon)

11. Samsung Galaxy Note 20 FE *(coming soon)

12. Samsung Galaxy Note 20, 20+, 20 Ultra, Ultra 5G *(coming soon)

13. Samsung Galaxy S20, S20+, S20 Ultra *(coming soon)

[ads1]

Google Pixel

1. Google Pixel 6 Pro

2. Google Pixel 6

3. Google Pixel 5a 5G

4. Google Pixel 5

5. Google Pixel 4a

6. Google Pixel 4

7. Google Pixel 3 & 3XL (Limited support)

8. Google Pixel 2

উপরে লিস্ট দেয়া হয়েছে বর্তমানে যে সকল ফোনগুলোতে eSIM সাপোর্টেড। তবে ভবিষ্যতে অনেক ফোন আসবে যেগুলোতে eSIM ই-সিম সাপোর্ট করবে।

[ads1]

eSIM কি? কিভাবে কাজ করে?

eSIM ই-সিম মানে হচ্ছে এম্বেডেড সিম (Embedded SIM), এম্বেডেড সিম আপনার ফোনের মধ্যে বিল্ড করা রয়েছে। তবে কাজ করবে আপনার ফোনে যে রেগুলার সিম রয়েছে সেটার মতোই। আপনাকে আলাদা করে ফোনের ভেতরে সিম লাগাতে হবে না। আপনার মাদারবোর্ডের মধ্যে এই সিমের যে চিপ রয়েছে সেটি আগে থেকেই বিল্ট-ইন থাকবে। (ফ্যাক্টরি থেকেই আপনার ফোনের মধ্যে সিমের চিপ বিল্টি-ইন করে দিবেন কম্পানি)

কিছু সেটিংস রয়েছে যেগুলোর মাধ্যমে আপনার ফোনের মধ্যে আপনার ব্যবহৃত সিম অথবা আপনি যে নাম্বারটি কে eSIM ই-সিম হিসেবে ব্যবহার করতে চাচ্ছেন সেটিকে সেটআপ করতে হবে। এই পুরো প্রসেসটি হচ্ছে আপনি একটি ফোন থেকে আপনার নাম্বারটা ডিলিট করে আবার অন্য ফোনে সেটাপ করে নিতে পারবেন। এতে করে আপনাকে কোন প্লাস্টিকের সিম কার্ড ব্যবহার করতে হচ্ছে না।

►► আরো দেখো: সফটওয়্যার ছাড়া সেকেন্ডেই ছবির ব্যাকগ্রাউন্ড রিমুভ করুন
►► আরো দেখো: PSD থেকে HTML বাংলা PDF টিপস

[ads1]

নতুন ই-সিম কীভাবে অ্যাক্টিভেট করা যাবে?

  • পছন্দ অনুযায়ী একটা প্ল্যান বেছে নিন
  • আপনার মোবাইল নম্বরটি বেছে নিন
  • বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন পদ্ধতিটি সম্পন্ন করুন
  • আপনার হ্যান্ডসেটটিতে ইন্টারনেট সংযোগ নিশ্চিত করুন
  • সিম টিটে দেওয়া QR কোডটি স্ক্যান করুন
  • আপনার হ্যান্ডসেট অনুযায়ী ধাপে ধাপে প্রসেসটি কমপ্লিট করুন

ই-সিম থেকে ফিজিক্যাল সিমে কীভাবে ফিরবেন?

  • ই-সিম রিপ্লেসমেন্টের জন্য রিকোয়েস্ট করুন
  • বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন পদ্ধতিটি সম্পন্ন করুন

[ads1]

  • আপনার হ্যান্ডসেটটিতে ইন্টারনেট সংযোগ চালু করুন
  • হ্যান্ডসেট থেকে ই-সিম প্রোফাইলটা ডিঅ্যাক্টিভেট এবং ডিলিট করুন
  • আপনার হ্যান্ডসেট অনুযায়ী ধাপে ধাপে প্রসেসটি কমপ্লিট করুন

ফিজিক্যাল সিমকে ই-সিমে কীভাবে রিপ্লেস করা যাবে?

আপনার ফিজিক্যাল সিমকে ই-সিমে রিপ্লেস করতে ই-সিম সাপোর্টেড হ্যান্ডসেট নিয়ে আপনার নিকটবর্তী জিপি এক্সপেরিয়েন্স সেন্টারে গিয়ে ই-সিম ক্রয় করার পক্রিয়াটি সম্পন্ন করুন অথবা জিপি অনলাইন শপে গিয়ে নিচের স্টেপগুলো অনুসরণ করে ই-সিমে কনভার্ট করে নিন:

  • ই-সিম রিপ্লেসমেন্টের জন্য রিকোয়েস্ট করুন
  • বায়োমেট্রিক ভেরিফিকেশন পদ্ধতিটি সম্পন্ন করুন
  • আপনার হ্যান্ডসেটটিতে ইন্টারনেট সংযোগ চালু করুন
  • সিম কিটে দেওয়া QR কোডটি স্ক্যান করুন
  • আপনার হ্যান্ডসেট অনুযায়ী ধাপে ধাপে প্রসেসটি কমপ্লিট করুন

ই-সিমের সংযোগ ঠিক রেখে হ্যান্ডসেট পরিবর্তন

  • দুইটা হ্যান্ডসেটে ইন্টারনেট সংযোগ চালু রাখুন
  • আপনার পুরানো হ্যান্ডসেট থেকে ই-সিম প্রোফাইলটা ডিঅ্যাক্টিভেট এবং ডিলিট করুন
  • নতুন হ্যান্ডসেটে QR কোডটি স্ক্যান করুন
  • আপনার নতুন হ্যান্ডসেট অনুযায়ী ধাপে ধাপে প্রসেসটি কমপ্লিট করুন

eSIM ই-সিমের সুবিধা

[ads1]

eSIM কি, কেন

  • নিরাপদ : কারণ হারানোর ভয় নাই
  • সহজ : খুব সহজেই ইন্সটল করা যায়
  • পরিবেশবান্ধব : প্লাস্টিক সিমের প্রয়োজন নাই

আপনাকে প্লাস্টিকের এই সিমের কোন ঝামেলা নিতে হচ্ছে না, eSIM ই-সিম সফটওয়্যার এর মাধ্যমে ইনস্টল করে নিতে পারছেন। eSIM ই-সিম সাইজে অনেক বেশি ছোট হওয়াতে আপনার ফোনের ওয়েট থেকে শুরু করে অনেক কিছুই স্লিম করে। এছাড়া স্মার্টফোনের বাইরে ও যে অন্যান্য ডিভাইস গুলো রয়েছে যেমন- স্মার্ট ওয়াচ এগুলোতে (Nano SIM) ন্যানো সিম অথবা বড় ধরনের সিমগুলো লাগানো কঠিন হওয়াতে আপনি eSIM ই-সিম ব্যবহার করতে পারবেন যদি সাপোর্ট হয়ে থাকে। অতঃপর ব্যবহার কিন্তু অনেক অনেক বেশি। 

যেহেতু এখানে প্লাস্টিকের কোন সিম কার্ড ব্যবহার করা হচ্ছে না তাই এটা পরিবেশের জন্য অনেক বেশি ভালো। ২০২০ শারে প্রায় ৪.৫ বিলিয়ন প্লাস্টিকের সিম কার্ড তৈরি করা হয়েছে,পাশাপাশি সেই সকল সিম কার্ড গুলোর জন্য যে প্যাকেজিং গুলো তৈরি করা হয়, এবং প্যাকেজিং মেটারিয়াল সহজে তৈরি করা হয় সেগুলো আমাদের পরিবেশের জন্য অনেক হার্মফুল হয়ে থাকে। eSIM ই-সিম পরিবেশের এই ক্ষতিকে অনেকাংশে কমিয়ে নিয়ে আসতে পারবে। 

[ads1]

eSIM ই-সিমের অসুবিধা

অসুবিধা হচ্ছে সকল ফোনে এখন পর্যন্ত গ্রামীণফোনের অথবা ইন্টার্নেশনাল এই eSIM ই-সিম ব্যবহার অথবা সাপোর্ট করে না। যে কারণে আপনি চাইলেই সব ফোনে আপনার eSIM ই-সিম টি ব্যবহার করতে পারবেন না। তবে আপনি চাইলে আবার eSIM ই-সিম কে ফিজিক্যাল সিমে কনভার্ট করতে পারবেন, যদি কখনো প্রয়োজন পড়ে তবে।

eSIM সম্পর্কে আরো বিস্তারিত জানতে গ্রামীনফোনের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট ভিজিট করতে এখানে ক্লিক করুন

Leave a Comment

error: দুঃখিত! মার্ক হবে না..